রাষ্ট্রপতির দৌড়ে এগিয়ে ড. মশিউর রহমান

35
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আজ শেষবারের মতো ভাষণ দেবেন। আজ জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়েছে। সংসদের রীতি অনুযায়ী নতুন বছরের শুরুতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ভাষণ দেন। রাষ্ট্রপতি হিসেবে এটাই আবদুল হামিদের ভাষণ শেষ। নতুন রাষ্ট্রপতি নিয়োগের প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ শুরু করেছে। গতকাল আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন যে, রাষ্ট্রপতির জন্য সংবিধান পরিবর্তন হবে না। সংবিধান সম্মতভাবেই এবং সংবিধানে বেঁধে দেওয়া সময় সীমার মধ্যে নতুন রাষ্ট্রপতি নিযুক্ত করবে সরকার।
আগামী এপ্রিলে আব্দুল হামিদের রাষ্ট্রপতির মেয়াদ শেষ হচ্ছে। পরপর দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আব্দুল হামিদ। সেই হিসেবে তিনি আর রাষ্ট্রপতি হবার জন্য যোগ্য বিবেচিত হবেন না। এই জন্য সংসদকে আগামী ফেব্রুয়ারির মধ্যে একজন নতুন রাষ্ট্রপতি নিযুক্ত করতে হবে। নতুন রাষ্ট্রপতি কে হচ্ছেন? এ নিয়ে নানারকম আলাপ-আলোচনা শুরু হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে নাটকীয় কোনো পরিবর্তন না হলে পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হতে পারেন ড. মশিউর রহমান।

ড. মশিউর রহমান প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৯ সাল থেকে তিনি এই দায়িত্ব পালন করেছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা হিসেবে ছিলেন ড. মশিউর রহমান। পচাঁত্তরের পরবর্তী সময়ে সরকারি চাকরিতে থাকলেও নানা টানাপোড়েনের মধ্য দিয়ে তাকে সময় অতিবাহিত করতে হয়েছে। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে তিনি সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে অবসরে যান। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার সরকার গঠন করলে ড. মশিউর রহমান প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করা শুরু করেন এবং সেই দায়িত্ব তিনি এখন পর্যন্ত অব্যাহত রেখেছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এবং আস্থাভাজন হিসেবে বিবেচিত ড. মশিউর রহমান। নানা কারণে ড. মশিউর রহমান রাষ্ট্রপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।
প্রথমত, রাষ্ট্রপতি বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী এবং সরকার একজন আস্থাজানক ব্যক্তিকে সবার আগে বিবেচনা করবে। বিশেষ করে ১৯৯৬ সালে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদকে রাষ্ট্রপতি করার পর যে তিক্ত অভিজ্ঞতা আওয়ামী লীগের হয়েছে সেখান থেকে আস্থা এবং বিশ্বাসের বিষয়টি সবার সামনে চলে এসেছে। সে বিবেচনা থেকে ড. মশিউর রহমান সন্দেহাতীতভাবেই আস্থাশীল এবং বিশ্বস্ত। এবারে যিনি রাষ্ট্রপতি হবেন তার নেতৃত্বে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবার অনেক জটিল সমীকরণের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে এবং সেখানে বিরোধী দল এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় একটি বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করবে। সেই বিবেচনায় ড. মশিউর রহমান আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে গ্রহণযোগ্য হবে না। তিনি একজন গ্রহণযোগ্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে সুশীল সমাজ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সহ বিভিন্ন মহলের আস্থাভাজন হতে পারে এমন বিবেচনা  করছে আওয়ামী লীগ।
দ্বিতীয়ত, রাষ্ট্রপতি হিসেবে একজন মার্জিত রুচিশীল ব্যক্তিকে খুঁজছে আওয়ামী লীগ এবং সে বিবেচনা থেকে ড. মশিউর রহমান উচ্চ শিক্ষিত এবং যথেষ্টভাবে দলের বাইরে গ্রহণযোগ্য। এসমস্ত বিবেচনা থেকেই ড. মশিউর রহমান আগামী রাষ্ট্রপতি হতে পারেন এমন গুঞ্জন আওয়ামী লীগের শোনা যাচ্ছে। তবে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে যে, পরবর্তী রাষ্ট্রপতি কে হবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কাজেই তিনি যাকে বিবেচনা করবেন তিনিই হয়তো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন।
সংবিধান অনুযায়ী জাতীয় সংসদ সদস্যদের ভোটে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবার কথা। কাজেই আওয়ামী লীগ যাকে মনোনীত করবে তিনি হবেন পরবর্তী রাষ্ট্রপতি।