রংপুরে পরাজয়ের কারণ জানালেন ওবায়দুল কাদের

20

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নৌকার মেয়রপ্রার্থীর ভরাডুবি হয়েছে। এ হারের পেছনে ‘সাংগঠনিক সমস্যাকেও’ কারণ হিসেবে দেখছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখছি, তদন্ত করে দেখছি। এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা (রংপুরে) বড় রকমের সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি।

ওবায়দুল কাদের জানান, নৌকার প্রার্থীর দুর্বলতা তারা আগে থেকেই জানতেন, তবে ব্যবধানটা তিনিও মানতে পারছেন না।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, জনমত জরিপেই সেখানে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এগিয়ে ছিল। আমাদের ভেতরে কিছু সমস্যা আছে, নইলে ভোটে এত ব্যবধান হওয়ার কথা নয়।

তিনি বলেন, আমরা তো কেউ সেখানে যাইনি। আমরা আগেই জানতাম আমরা পিছিয়ে আছি। এ জন্য আমরা পিছিয়ে আছি বলে এগিয়ে যাওয়ার জন্য জোর করে কোনো চেষ্টা করিনি। সেদিক থেকে সেখানে গণতন্ত্রের বিজয় হয়েছে বলে আমি মনে করি।

মঙ্গলবার ওই নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা বিপুল ভোটে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন।

ঘোষিত বেসরকারি ফলে দেখা যায়, লাঙল প্রতীকে মোস্তফা পেয়েছেন ১ লাখ ৪৬ হাজার ৭৯৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আমিরুজ্জামান প্রার্থী হাতপাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৮৯২ ভোট।
তৃতীয় অবস্থানে থাকা কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রকৌশলী মো. লতিফুর রহমান হাতি প্রতীকে পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৮৮৩ ভোট। আর আওয়ামী লীগের প্রার্থী হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া নৌকা মার্কায় ২২ হাজার ৩০৬ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।