মহানবী (সা.)কে কটূক্তির মামলায় সেই রাকেশের ৭ বছরের জেল

31

ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)কে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে করা মামলায় একজনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। তার নাম রাকেশ রায়।

মঙ্গলবার তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় সিলেটর সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবুল কাশেম এই রায় ঘোষণা করেন।

এই মামলায় জামিনে থাকা রাকেশ রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায়ের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রাকেশ রায় বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও মানবাধিকারকর্মী।

আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর মোস্তফা দিলওয়ার আল আজহার বলেন, ‘যুক্তিতর্ক শেষে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত রাকেশ রায়কে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে।’

রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করার কথা জানিয়েছেন রাকেশের আইনজীবী ইশতিয়াক আহমদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আইনজীবী হিসেবে আমি আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে বলতে পারি না। তবে ন্যায়বিচারের আশায় আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব।’

এই মামলার ব্যাপারে জামিনে থাকার সময় রাকেশ রায় সাংবাদিকদের বলেন, তার নামে ফেসবুকে ভুয়া আইডি তৈরি করে এসব ছড়িয়েছে একটি গোষ্ঠী।

তার অভিযোগ, আবদুল আজিজ নামে এক লোক জকিগঞ্জের হিন্দুদের ধর্মান্তরিত করার চেষ্টা করছিলেন। তিনি এসবের প্রতিবাদ করায় তার নামে ফেসবুক ভুয়া আইডি খুলে ধর্ম নিয়ে লেখা হয় এবং পরে আইসিটি আইনে মামলা করা হয়।

২০১৭ সালের জুনের শুরুতে রাকেশের বিরুদ্ধে জকিগঞ্জ থানায় মামলা করেন ফুযায়েল আহমদ নামের এক ব্যক্তি। এজাহারে তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে ইসলাম ধর্ম, মহানবী (সা.) ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ আনা হয়। ফুযায়েল ও রাকেশ একই উপজেলার বাসিন্দা।

ওই বছরের ৭ জুন সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা থেকে রাকেশকে গ্রেপ্তার করা হয়।