বিইআরসিকে পাশ কাটিয়ে বিদ্যুতের দাম ইউনিট প্রতি ১৯ পয়সা বাড়াল সরকার, ১ জানুয়ারি থেকেই কার্যকর

22

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) গণশুনানিকে পাশ কাটিয়ে সরকারের এক নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম গ্রাহক পর্যায়ে ইউনিট প্রতি ১৯ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। ১ জানুয়ারি থেকে বিদ্যুতের নতুন এ দাম কার্যকর হবে। আজ বৃহস্পতিবার নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়।

বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব মো. হাবিবুর রহমান বলেন, সরকার নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে। বিদ্যুৎ, গ্যাস ও জ্বালানি তেলের দাম এক তরফাভাবে বাড়ানোর জন্য সরকার সম্প্রতি বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) আইন সংশোধন করে।

দেশে ভোক্তাপর্যায়ে বিদ্যুতের খুচরা দাম ইউনিটপ্রতি ১৯ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এক নির্বাহী আদেশে এ দাম বাড়ানো হয়। ১ জানুয়ারি থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হয়ে হবে। একইসঙ্গে এখন থেকে প্রতিমাসে বিদ্যুতের খুচরা দাম নিয়মিত সমন্বয় করা হবে।

বিইআরসিকে পাশ কাটিয়ে এই প্রথম সরকারের নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হলো। গত ৩০ নভেম্বর বিইআরসি অধ্যাদেশ ২০২২ সংশোধন করে দাম বাড়ানোর বিশেষ ক্ষমতা নিজের হাতে নেয় সরকার।

এদিকে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর জন্য বিইআরসিতে থাকা গণশুনানির অপেক্ষায় থাকা আবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব বলেন, সরকারের এই দাম বাড়ানোর পর বিইআরসির আর দাম বাড়ানোর প্রয়োজন নেই।

গত নভেম্বরে পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বাড়ায় এ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। এটি ডিসেম্বর থেকে কার্যকর করা হয়। তাই ডিসেম্বর থেকেই খুচরা দাম বাড়াতে বিইআরসির কাছে আবেদন করে ছয়টি বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা। ২ জানুয়ারি এসব আবেদন নিয়ে শুনানি করে বিইআরসি। এরপর ১৫ জানুয়ারির মধ্যে মতামত জানাতে বলা হয়। তার ভিত্তিতে নতুন দাম ঘোষণা করার কথা বিইআরসির। সরকার ওই পর্যন্ত অপেক্ষা না করে আগেই দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দেশের সরকারি-বেসরকারি সব বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে চুক্তি অনুসারে নির্ধারিত দামে বিদ্যুৎ কিনে নেয় বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। এরপর তারা উৎপাদন খরচের চেয়ে কিছুটা কম দামে ছয়টি বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থার কাছে বিক্রি করে। ঘাটতি মেটাতে পিডিবি সরকারের কাছ থেকে ভর্তুকি নেয়। তবে বিতরণ সংস্থাগুলো কোনো ভর্তুকি পায় না। তারা নিয়মিত মুনাফা করছে। গত অর্থবছরেও মুনাফা করেছে বিতরণ সংস্থাগুলো।

এর আগে গত রোববার (৮ জানুয়ারি) বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ওপর গণশুনানির আয়োজন করে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। তাতে বিদ্যুৎ বিতরণকারী ছয়টি প্রতিষ্ঠান/সংস্থা দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব উত্থাপন করে। ওই শুনানিতে বিদ্যুতের দাম ১৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ বৃদ্ধির সুপারিশ করেছিল বিইআরসির কারিগরি কমিটি।