ধামরাইয়ে বাস খাদে পরার ২৪ ঘন্টা পর ২ জনের মরদেহ উদ্ধার

35

ধামরাইয়ে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে ডোবায় পরার প্রায় ২৪ ঘন্টা পর বাসের কন্ট্রাক্টর আব্দুল বাতেন (৪৫) ও মুক্তা আক্তার (২৫) নামের এক নারী পোশাক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে ধামরাই ফায়ারসার্ভিসের কর্মীরা।

শুক্রবার (২৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে ধামরাইয়ের বালিথা এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে একেএইস কারখানার সামনে একটি ডোবা থেকে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে ধামরাই ফায়ারসার্ভিসের কর্মীরা।

 

 

এর আগে বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যার দিকে যাত্রীসেবা নামের ওই বাসটি নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে ডোবায় পরে উল্টে যায়।

 

 

নিহত মুক্তা আক্তার সুতিপাড়া ইউনিয়নের শ্রীরামপুর এলাকার শাহজাহান মিয়ার মেয়ে। তিনি স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন এবং নিহত মোঃ আব্দুল বাতেন মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর থানার  রুয়াইল এলাকার সোবহান মির্জার ছেলে৷ তিনি ওই বাসের কন্ট্রাক্টর ছিলেন।
জানা যায়, বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যার দিকে যাত্রীসেবা নামের একটি বাস ধামরাই বাড়বাড়িয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে নয়ারহাট বাসস্ট্যান্ডে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে ধামরাইয়ের বালিথা এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে একেএইচ কারখানার সামনে একটি ডোবায় পরে উল্টে যায়। পরে ধামরাই ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা রাতেই রেকার দিয়ে বাসটি উদ্ধারের চেষ্টা করলেও ডোবায় পানি থাকায় এবং রাত হওয়াতে বাসটি উদ্ধারে ব্যার্থ হোন। পরে (২৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে চেষ্টার পর সন্ধ্যার দিকে বাসটি ডোবা থেকে উঠাতে সক্ষম হোন ফায়ারসার্ভিসের কর্মীরা।

 

 

ধামরাই ফায়ারসার্ভিসের কর্মকর্তা সোহেল রানা  জানান, গত কাল (২২ ডিসেম্বর) বাসটি নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে রাস্তার পাশে ডোবায় পরে যায়। ডোবার মধ্যে পানি ও রাত হওয়াতে বাসটি রেকার দিয়ে উঠাতে আমাদের সমস্যা হয়। পরে আজ (২৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে উদ্ধারের কাজ শুরু করি। সন্ধ্যার দিকে বাসটি উঠানোর পরই মুক্তা আক্তারের মরদেহ ভেসে উঠে। আরো মরদেহ থাকতে পারে ভেবে আমরা ডোবায় তল্লাশি চালাই। পরে বাসের কন্ট্রাক্টর বাতেনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহ দুটি গোলড়া হাইওয়ে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
এবিষয়ে গোলড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ খান জানান, এই ঘটনায় দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতদের স্বজনদের খবর দেয়া হয়েছে। স্বজনরা আসলে তাদের সাথে কথা বলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।