দুধে পিছিয়ে থাকলেও মাছ-মাংসে উদ্বৃত্ত উৎপাদন হচ্ছে: সাভারে পশুসম্পাদমন্ত্রী

53

স্টাফ রিপোর্টার : প্রাণিসম্পদের উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি গুণগত পরিপূর্ণতা আনা সরকারের লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) সাভারে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএলআরআই) মিলনায়তনে এক কর্মশালায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় আওতাধীন দপ্তর ও সংস্থার বিশাল ভূমিকা রয়েছে। দুধে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও দেশে মাছ-মাংস ও ডিমে কখনো উদ্বৃত্ত উৎপাদন হচ্ছে। এক সময় আমাদের লক্ষ্য ছিল উন্নয়ন বাড়ানো, এখন লক্ষ্য টেকসই উন্নয়ন। মাছ-মাংস, ডিম-দুধ উৎপাদন বৃদ্ধিই শুধু নয়, এ খাতে গুণগত পরিপূর্ণতা আনা লক্ষ্য। যেটা টেকসই উন্নয়নের একটা অংশে পরিণত হবে।

প্রাণিজ আমিষের চাহিদা মেটানো, অর্থনৈতিক সচ্ছলতা আনা ও উদ্যোক্তা তৈরিতে প্রাণিসম্পদ খাতের বিশাল ভূমিকা রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে কৃষিজ জিডিপিতে এ খাতের অবদান ১৬ দশমিক ৫২ শতাংশ। ১৯৭২ সালে দেশে জনপ্রতি দুধের প্রাপ্যতা ছিল ১৭ মিলিলিটার, বর্তমানে জনপ্রতি প্রাপ্যতা প্রায় ২০৮ দশমিক ৬১ মিলিলিটার। জনপ্রতি মাংসের প্রাপ্যতা ছিল ৪ দশমিক ৯৭ গ্রাম, যা বর্তমানে বেড়ে হয়েছে ১৪৭ দশমিক ৮৪ গ্রাম। জনপ্রতি বছরে ডিমের প্রাপ্যতা ছিল মাত্র চারটি, বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৬ দশমিক ১টিতে। এভাবে এ খাতে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ খাতের বিকাশে গবেষণা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে শ ম রেজাউল করিম বলেন, এ খাতের গবেষণা আরও গতিময় করতে হবে, গবেষণার গভীরে যেতে হবে। গতানুগতিক গবেষণা পরিহার করে গবেষণার সৃষ্টি যত দ্রুত সামনে আনা যায়, সেটা নিয়ে কাজ করতে হবে।

বিএলআরআই মিট চিকেন-১ সুবর্ণ এবং লবণসহিষ্ণু বিএলআরআই ঘাস-৫ প্রযুক্তি দুটি নিয়ে সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, বিএলআরআই মিট চিকেন-১ সুবর্ণ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের নতুন সৃষ্টি। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এটি আমাদের বড় ধরনের সাফল্য। এ জাত দ্রুত বর্ধনশীল ও দেখতে অনেকটাই দেশি মুরগির মতো। এটি দেশি আবহাওয়ায় পালন উপযোগী ও অধিক মাংস উৎপাদনশীল একটি জাত। এর মাংস সুস্বাদু। এ জাত সারাদেশে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এটি দেশীয় মুরগির চাহিদা মেটাতে পারবে। অপরদিকে লবণাক্ত ও উপকূলীয় অঞ্চলে লবণসহিষ্ণু বিএলআরআই ঘাস-৫ চাষের মাধ্যমে এসব অঞ্চলের প্রাণিসম্পদের জন্য খাদ্যের যোগান সহজ হবে।

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. এস এম জাহাঙ্গীর হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নাহিদ রশীদ।

সচিব বলেন, ২০৪১ সালের উন্নত দেশে দক্ষতা অর্জন করতে মাছ-মাংস ও দুধ-ডিমের বিকল্প নেই। দেশীয় জাত সংরক্ষণে বিএলআরআইকে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। পাশাপাশি নিজস্ব অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান কাজে লাগিয়ে নতুন নতুন উদ্ভাবন করতে হবে।