কন্ঠশিল্পী মমতাজের বাড়িতে শুরু হয়েছে তিন ব্যাপি মধুর মেলা

22

মাসুম বাদশাহ, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জ-০২ আসনের সংসদ সদস্য কন্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের নিজ বাড়ি মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার জয়মন্টপ গ্রামের বাউল কমপ্লেক্স মধু মঞ্চে গত রবিবার থেকে শুরু হয়েছে ৩ দিন ব্যাপি মধুর মেলা। মমতাজের প্রয়াত পিতা বাউল সাধক আলহাজ্ব মধু বয়াতির স্মরণে প্রতিবছর ইংরেজি নতুন বছরের শুরুতে এ মেলার আয়োজন করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ১ জানুয়ারি শুরু হয়েছে ২২তম এ আসর। চলবে আগামীকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত।


মেলার মূল আকর্ষণ সাড়া দেশের বিখ্যাত বাউল শিল্পীদের অংশ গ্রহণে লোকজ ও পালা গানের আসর। গত রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে মেলা উদ্বোধন করেন-জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি। প্রধান অতিথি চীফ হুইপ তার বক্তব্যে বলেন, ভয়াবহ মাদকের ছোবল থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করতে সাংস্কৃতিক চর্চার বিকল্প নেই। মেলা ও গান সাংস্কৃতির অংশ। জাতির জনকের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সাংস্কৃতিকে ধরে রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তার মেয়ে প্রধানমন্ত্রী স্বাধীন রক্ষা করে দেশের উন্নয়ন করছেন। সোনার বাংলাদেশ গড়তে সোনার মানুষের বিকল্প নেই। উপজেলা আওয়ামীলাগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুর রহমান শহিদের পরিচালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মধুর মেলার আয়োজক ফোক সম্রাজ্ঞী মমতাজ বেগম এমপি, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাড. গোলাম মহি উদ্দিন প্রমুখ। বিভিন্ন বাউল শিল্পী ছাড়াও ওই দিন রাতে কাম ও প্রেমতত্ত্ব নিয়ে পালা গান পরিবেশন করেন -লতিফ সরকার ও মুক্তা সরকার।

দ্বিতীয় দিন রাতে পালা গানে অংশ নেন-মানিক দেওয়ান ও রুমা সরকার। আগামীকাল সমাপনী দিনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন- স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী আলহাজ¦ জাহিদ মালেক স্বপন এমপি। রাতে মেলা মঞ্চে কবিগান পরিবেশন করবেন- কলকাতার বিখ্যাত কবিয়াল সুমন সরকার ও বিকাশ সরকার। এ ছাড়া প্রতিদিন বিকেল ৩ টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসা স্বনামধন্য বাউল শিল্পীরা মধু মঞ্চে গান পরিবেশন করছেন।

মেলাকে ঘিরে ইতিমধ্যেই বাউল কমপ্লেক্স এলাকায় বইছে উৎসবের আমেজ। দোকানিরা বিভিন্ন পন্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। বিনোদনের জন্য রয়েছে- নাগরদোলা, মিনিট্রেন ও ইলেকট্রিক নৌকাসহ বিভিন্ন প্রকার রাইডস। মেলায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আইনশৃংখলা বাহিনীর পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ স্বেচ্ছাসেবক নিয়োজিত রয়েছেন। ‘