আশুলিয়া শ্রমিক কলোনীতে আগুন, স্কুলসহ পুড়ল ৩২ কক্ষ

154

শাহাদাৎ হোসেন, আশুলিয়া প্রতিনিধি : আশুলিয়ায় একটি শ্রমিক কলোনীতে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে শ্রমিক কলোনীর ১৭টি কক্ষ, একটি স্কুলের ৮টি কক্ষ এবং পাশের দোকানসহ আরো ৭টি কক্ষ ও কক্ষে থাকা সমস্ত মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। ফায়ারসার্ভিসের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় এক ঘন্টা চেষ্টায় আগুন পুরুপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। আগুনে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী ক্ষতিগ্রস্ত মালিকদের।

শনিবার (১৭ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১০ টারদিকে আশুলিয়ার কলতাসূতি মাঝার রোড বটতলা এলাকায় আগুনের এ ঘটনা ঘটে।

আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বকসি আদর্শ পাবলিক স্কুলের পরিচালক জহিরুল ইসলাম বকসি জানান, রাত সাড়ে ১০ টারদিকে স্কুলের পাশেই শাহাবুদ্দিন মাস্টারের মালিকানাধীন সিএনজি গ্যারেজ থেকে আগুন লাগে। মুহুর্তের মধ্যেই আগুন গ্যারেজের পাশের টিনসেডের শ্রমিক কলোনী, দোকানপাট ও তার স্কুলে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে তার স্কুলের ৮টি কক্ষ, ১৫টি কম্পিউটার, পিএসসি, জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার সার্টিফিকেট, বইপত্রসহ সবকিছু পুড়ে গেছে। এতে তার ১০ লক্ষাধিক টাকার মত ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী।

ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক কলোনীর মালিক শাহাবুদ্দিনের স্ত্রী রোকেয়া বেগম জানান, তাদের টিসেডের ১৬ টা এবং সেমিপাকা ১ টাসহ মোট ১৭টি কক্ষ পুড়ে গেছে। সেই সাথে ভাড়াটিয়াদের কক্ষে থাকা টিভি, ফ্রিজ, স্বর্ণালঙ্কার, নগদ টাকাসহ সমস্ত মালামাল পুড়ে গেছে। আনুমানিক তাদের ২০/২৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেন তিনি।এদিকে, ইঞ্জিনিয়ার মতিউর রহমানের মালিকানাধীন ভাড়া দেয়া স্কুলের ৮ কক্ষ, দোকান ও অন্যান্য ভাড়াটিয়াদেরসহ মোট ১৫টি কক্ষ পুরে যায়। যার মধ্যে একটি হোটেল, ইলেকট্রনিক ও ফার্নিচারের দোকান, মুদি দোকান এবং এসব কক্ষে থাকা সবকিছু পুড়ে গেছে।

ডিইপিজেড ফায়ারসার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জহিরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ফায়ারসার্ভিসের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় এক ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলেই প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। আগুনে কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা তদন্ত করে বলা যাবে। তবে সব মিলিয়ে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তদের দাবী।