আল্লাহ ক্ষমাশীল

58

আল্লাহ ক্ষমাশীল। এটি মহান আল্লাহর একটি গুণ। মানুষমাত্রই অন্যায় করে, ক্ষমা চাইলে আল্লাহ ক্ষমা করেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল (সা.) বলেছেন, মহান আল্লাহ তাঁর বান্দার তওবায় তোমাদের ওই লোকের চাইতে বেশি খুশি হন মরুভূমিতে যার উট হারিয়ে যাওয়ার পর তা সে ফিরে পেল।

আবু মুসা (রা.) থেকে বর্ণিত। নবী করিম (সা.) বলেছেন, পশ্চিম দিকে সূর্যোদয় না হওয়া পর্যন্ত মহান আল্লাহ প্রতি রাতে তাঁর রহমতের হাত প্রসারিত করেন যাতে দিনের গুনাহগার তওবা করে। আর তিনি প্রতিদিনই তাঁর ক্ষমার হাত প্রসারিত করেন যেন রাতের গুনাহগার তওবা করে।

ইমরান ইবনে হুসাইন (রা.) থেকে বর্ণিত। জুহায়নাহ গোত্রের এক মহিলা জিনার কারণে গর্ভবতী হয়ে রসুলুল্লাহ (সা.) কাছে এসে বলল, হে আল্লাহর রসুল! আমি জিনার গুনাহ করেছি, আমাকে এর শাস্তি দিন। তার অভিভাবককে ডেকে এনে নবী (সা.) বললেন, এর সঙ্গে ভালো ব্যবহার করবে। সে সন্তান প্রসব করার পর তাকে আমার কাছে নিয়ে আসবে। এ ব্যক্তি তা-ই করল। এরপর নবী (সা.) তাকে জিনার শাস্তির আদেশ করলেন। তার শরীরের সঙ্গে কাপড় ভালোভাবে বেঁধে দেওয়া হলো এবং নির্দেশ অনুযায়ী তাকে পাথর মেরে হত্যা করা হলো। রসুলুল্লাহ (সা.) তার জানাজার সালাত আদায় করলেন। হজরত ওমর (রা.) বললেন, হে আল্লাহর রসুল! এ তো জিনা করেছে, আপনি তবু এর জানাজার সালাত আদায় করছেন? রসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, সে এমন তওবা করেছে যা ৭০ জন মদিনাবাসীর মাঝে বণ্টন করে দিলেও তাদের জন্য তা যথেষ্ট হয়ে যেত। আল্লাহর জন্য নিজের প্রাণকে যে মহিলা স্বেচ্ছায় বিলিয়ে দেয় তার এমন তওবার চাইতে উত্তম কোনো কাজ তোমার কাছে আছে কি? (আত তারগিব)

 

সাহাবি আবু সাইদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত। নবী করিম (সা.) বলেছেন, তোমাদের আগের যুগের এক ব্যক্তি ৯৯ জনকে হত্যা করার পর পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ আলেমের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ল। তাকে এক খ্রিস্টান দরবেশের খোঁজ দেওয়া হলো। সে তার কাছে গিয়ে বলল, সে ৯৯ জন লোককে হত্যা করেছে, তার জন্য এখন তওবার সুযোগ আছে কি? দরবেশ বলল, নেই। ফলে দরবেশকে হত্যা করে সে ১০০ সংখ্যা পূর্ণ করল। এরপর পুনরায় সে দুনিয়ার সর্বশ্রেষ্ঠ আলেমের খোঁজে বেরিয়ে পড়লে তাকে এক আলেমের খোঁজ দেওয়া হলো। তার কাছে গিয়ে সে বলল, সে ১০০ লোককে হত্যা করেছে, এখন তার জন্য তওবার সুযোগ আছে কি? আলেম বলল, হ্যাঁ, তওবার সুযোগ আছে। তওবায় বাধা কে হতে পারে? তুমি অমুক স্থানে চলে যাও। সেখানে কিছুসংখ্যক লোক আল্লাহর ইবাদত করছে। তাদের সঙ্গে তুমিও ইবাদত কর। আর তোমার দেশে ফিরে যেও না। কারণ ওটা মন্দ এলাকা। ফলে নির্দেশের স্থানের দিকে লোকটি চলতে থাকল। অর্ধেক রাস্তা গেলে তার মৃত্যুর সময় এসে পড়ল। তখন রহমতের ফেরেশতা ও আজাবের ফেরেশতার মধ্যে বিরোধ দেখা দিল। রহমতের ফেরেশতা বলল, এ লোক তওবা করে আল্লাহর দিকে ফিরে এসেছে। কিন্তু আজাবের ফেরেশতা বলল, লোকটি কখনো কোনো সৎ কাজ করেনি। এমন সময় মানুষের রূপ ধারণ করে আরেক ফেরেশতা তাদের কাছে এলো। তারা এ বিষয়ে তাদের মধ্যে তাকেই বিচারক মেনে নিল। বিচারক বলল, তোমরা উভয় দিকের রাস্তার দূরত্ব মেপে দেখ। যে দিকটি কাছে হবে, সে সেটিরই অন্তর্ভুক্ত। কাজেই জায়গা পরিমাপের পর যেদিকের উদ্দেশে সে এসেছিল তাকে সে দিকটার কাছে পাওয়া গেল। ফলে রহমতের ফেরেশতারা তার জান কবজ করল। (মুসলিম)

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক