বাংলাদেশ শনিবার 20, January 2018 - ৭, মাঘ, ১৪২৪ বাংলা

ব্যাংক খাতে বাড়ছে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ১৪:৫৫ ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭

ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণ যথাসময়ে ফেরত আসছে না। এতে ব্যাংক খাতে বেড়ে যাচ্ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। আর খেলাপির পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় এই খাতে বাড়ছে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তৈরি করা সর্বশেষ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, তিন মাসেই ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ বেড়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। এ বছরের জুনে ব্যাংকিং খাতে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ ছিল ৮ লাখ ২৮ হাজার কোটি টাকা। তিন মাস পরে, সেপ্টেম্বরে এর পরিমাণ বেড়ে হয়েছে ৮ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বলেন, ‘প্রত্যেক ঋণেই কম-বেশি ঝুঁকি থাকে। ব্যাংক মূলত ঝুঁকি নিয়েই গ্রাহকের কাছে ঋণ বিতরণ করে। আর বিতরণ করা ঋণ ফেরত না এলে সেটা শতভাগ ঝুঁকিতে পরিণত হয়।’ তিনি বলেন, ‘খেলাপি ঋণ বেড়ে গেলে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদও বেড়ে যায়। কারণ, খেলাপি হওয়ার আগ পর্যন্ত যেকোনও ঋণ ব্যাংকের জন্য আশীর্বাদ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। কিন্তু যখনই খেলাপি হয়ে পড়ে, তখনই সেটা ঝুঁকিতে পরিণত হয়। ওই ঋণের বিপরীতে রাখা সম্পদও তখন ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদে পরিণত হয়।’

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) এই গবেষক মনে করেন, ব্যাংকে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ বেড়ে যাওয়ার অর্থ— ব্যাংক ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়ছে। এ জন্য দেখেশুনে ঋণ দিতে হবে। সময়মতো ঋণের টাকা ফেরত আনার উদ্যোগ নিতে হবে। খেলাপির পরিমাণ কমাতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো— ব্যাংকের ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ কমাতে চাইলে খেলাপি আদায় বাড়াতে হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ব্যাংক খাতের ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ বেড়ে যাওয়ায় কমছে মূলধন সংরক্ষণের সক্ষমতা। এ কারণে ব্যাংকের ঝুঁকি-সহনশীল ক্ষমতাও কমে যাচ্ছে। ফলে বাড়ছে ঝুঁকির পরিমাণ।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘ঋণ ফেরত না আসার কারণে ঝুঁকি বাড়ে। ঋণের বিপরীতে যে সম্পদ ব্যাংকে জমা থাকে, সেটা ঝুঁকি সম্পদে পরিণত হয়। আর এটা বেড়ে যাওয়া মানে হলো— ব্যাংকগুলোর অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়া।’

সাবেক এই গভর্নর আরও বলেন, ‘ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকলে একসময় পুরো ব্যাংকই ঝুঁকিতে পড়ে যায়।’ তিনি উল্লেখ করেন, ‘ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা যথাযথভাবে যাচাই-বাছাই না করে ঋণ দেওয়ায় এমনটি হচ্ছে। এতে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। এর ফলে কমছে মূলধন সংরক্ষণের সক্ষমতাও।’ ঢালাওভাবে পুনঃতফসিল ও পুনর্গঠনের মতো অপসংস্কৃতি চালু হওয়ায় এই ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

এদিকে, ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদ বেড়ে যাওয়ায় প্রয়োজনীয় মূলধন সংরক্ষণ করতে পারছে না ব্যাংকগুলো। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ বছরের জুনে ব্যাংকগুলো গড়ে মূলধন সংরক্ষণ করেছে ১০ দশমিক ৮৬ শতাংশ হারে। তিন মাস পর, সেপ্টেম্বরে এই হার কমে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১০ দশমিক ৬৫ শতাংশ। অথচ এই সময়ে মূলধন সংরক্ষণ হওয়ার কথা ছিল পৌনে ১২ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংক অবশ্য এ জন্য প্রধান প্রতিবন্ধকতা হিসেবে দেখছে সরকারি ব্যাংকগুলোকে। যদিও আগামী এক বছরের মধ্যে ব্যাংকিং খাতের মূলধন সংরক্ষণ সাড়ে ১২ শতাংশে উন্নীত হওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তা না হলে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য নিষ্পত্তিতে ব্যয় বেড়ে যাওয়াসহ নানাবিধ সমস্যা দেখা দেবে। পণ্য আমদানিতে দেশীয় ব্যাংকগুলোর গ্রহণযোগ্যতা কমে যাবে। বাধ্য হয়ে থার্ডপার্টি গ্যারান্টির মাধ্যমে পণ্য আমদানি করতে হতে পারে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, খেলাপি ঋণের আধিক্য বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ে সরকারি ব্যাংকগুলোয় বেশি। এ কারণে সরকারি ব্যাংকগুলো প্রয়োজনীয় প্রভিশন সংরক্ষণ করতে না পারায় মূলধন ঘাটতির মুখে পড়েছে। এর পুরো প্রভাব পড়েছে গোটা ব্যাংকিং খাতে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকটির প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত সেপ্টেম্বরে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় ব্যাংক মূলধন সংরক্ষণ করেছে মাত্র ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ হারে, যেখানে গত জুনে এই হার ছিল ৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ। আর বিশেষায়িত দুই ব্যাংক (বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক) ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের বিপরীতে মূলধন সংরক্ষণ করেছে ঋণাত্মক ৩৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ হারে। অবশ্য ৩৯টি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক গড়ে মূলধন সংরক্ষণ করতে পেরেছে ১২ দশমিক ২০ শতাংশ হারে। আর ৯টি বিদেশি ব্যাংকের ক্ষেত্রে এই হার ২৪ দশমিক ০৩ শতাংশ।

 

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

সাভারে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বই বিতরণী অনুষ্ঠান

সাভারে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বই বিতরণী অনুষ্ঠান

  শিক্ষিত জাতি দেশের সম্পদ। যে সব দেশ বিশ্বকে নেতৃত্ব দিচ্ছে তারা সকলেই শিক্ষায় অনেক

সিপিডি একটি রাজনৈতিক দলের তাঁবেদারি নিয়ে ব্যস্ত: এইচ টি ইমাম

সিপিডি একটি রাজনৈতিক দলের তাঁবেদারি নিয়ে ব্যস্ত: এইচ টি ইমাম

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) একটি রাজনৈতিক দলের তাঁবেদারি নিয়ে ব্যস্ত বলে মন্তব্য

দুর্ভিক্ষে কষ্ট ঠেকাতে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

দুর্ভিক্ষে কষ্ট ঠেকাতে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অতীতের মতো আর যেন কেউ দুর্ভিক্ষে কষ্ট না পায় সে লক্ষ্যে


পাঁচ বছরে ২৫ হাজার এমবিবিএস ডাক্তার

পাঁচ বছরে ২৫ হাজার এমবিবিএস ডাক্তার

দেশে ডাক্তারের সংখ্যা বাড়ছে। সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ থেকে গত পাঁচ বছরে গড়ে ৫

মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীতেও ছাড় নেই খালেদা জিয়ার!

মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীতেও ছাড় নেই খালেদা জিয়ার!

 বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মায়ের মৃত্যুবার্ষিকী হওয়ায় আদালত মুলতবি চেয়ে করা আবেদন মঞ্জুর করেননি আদালত।

গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন কত হবে?

গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন কত হবে?

দেশে তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর উদ্দেশ্যে আবারও ন্যূনতম মজুরি বোর্ড গঠন করেছে সরকার।


মার্চেই উন্নয়নশীল দেশের কাতারে পৌঁছাবে বাংলাদেশ : প্রধানমন্ত্রী

মার্চেই উন্নয়নশীল দেশের কাতারে পৌঁছাবে বাংলাদেশ : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ব্যবসায়িক সুনাম দেশ ছেড়ে বিদেশ ছাড়িয়েছে। রপ্তানি আয় তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি : দুদকের ৬১তম মামলায়ও নেই বাচ্চু

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি : দুদকের ৬১তম মামলায়ও নেই বাচ্চু

১৩৭ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জাপা নেতা মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহীমের ছোট ভাই ফয়সাল মুরাদ ইব্রাহিম

সব কিছুতে সরকারের যোগসুত্র খোঁজেন কেন? সাংবাদিকদের কাদের

সব কিছুতে সরকারের যোগসুত্র খোঁজেন কেন? সাংবাদিকদের কাদের

ডিএনসিসি উপ-নির্বাচন স্থগিত করে দেয়া হাইকোর্টের আদেশের সঙ্গে সরকারের কোনো যোগসাজশ নেই বলে দাবি করে



আরো সংবাদ




মাটির নিচে যাচ্ছে না বিদ্যুৎ লাইন

মাটির নিচে যাচ্ছে না বিদ্যুৎ লাইন

০২ জানুয়ারী, ২০১৮ ১১:০০







বিদায়ী বছরে এসে নড়বড়ে ব্যাংক খাত 

বিদায়ী বছরে এসে নড়বড়ে ব্যাংক খাত 

২২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৫:৩২



ব্রেকিং নিউজ






শোক বাণী

শোক বাণী

১৯ জানুয়ারী, ২০১৮ ২৩:৩৩





হিজড়া পরিচয়ে ভোটার হওয়া যাবে : ইসি

হিজড়া পরিচয়ে ভোটার হওয়া যাবে : ইসি

১৮ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৯:৪৩