বাংলাদেশ বুধবার 20, September 2017 - ৫, আশ্বিন, ১৪২৪ বাংলা

ঈদে অর্থনীতিতে যোগ হবে দুই লাখ কোটি টাকা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ১১:১৮ অগাস্ট ২৭, ২০১৭

মুসলিমদের ধর্মীয় বড় উৎসব দুই ঈদ। দুই ঈদকে কেন্দ্র করে চাঙ্গা হয়ে ওঠে অর্থনীতি। ঈদে কেনাকাটা, ভ্রমণ, বিনোদনসহ নানা খাতে মানুষের ব্যয় বেড়ে যায়। ফলে বাড়ে যায় অর্থের প্রবাহ। বিশেষ করে ঈদুল আজহায় কোরবানির পশু বাবদ ব্যয় হয় বিপুল অর্থ। নির্বাচনীর বছর হওয়ায় এই অর্থ ব্যয়ের হারও বাড়বে। এতে দেশের অর্থনীতিতে যোগ হবে বাড়তি প্রায় দুই লাখ কোটি টাকা। আগামী ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নেতারা নির্বাচনী এলাকায় বেশি বেশি যাতায়াত শুরু করেছেন। কোরবানির ঈদে সবচেয়ে বেশি চাঙ্গা হয়ে ওঠে গবাদিপশুর খামার খাত। একই সঙ্গে বেড়েছে গৃহসামগ্রীর চাহিদাও।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কোরবানির ঈদে পেঁয়াজ, রসুন, আদাসহ গরম মসলার চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। সব ঈদেই বাড়তি খরচ মেটাতে প্রবাসীরা দেশের স্বজনদের কাছে বাড়তি অর্থ পাঠিয়ে থাকেন। তাই বেড়ে যায় রেমিট্যান্স প্রবাহ। এবারও হয়েছে তাই, গত জুলাইয়ে গত বছরের একই সমযের তুলনায় রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়ে গেছে। সব মিলিয়ে দেশের অর্থনীতিতে আর্থিক প্রবাহ বেড়ে গেছে। জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ঈদে দেশের অর্থনীতিতে আর্থিক লেনদেন বেড়ে যায়। কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে দেশীয় ডেইরি, পোলট্রি, গৃহসামগ্রী, বুটিক, তাঁত, কামার, জুতো ইত্যাদি শিল্পে বড় ধরনের একটি পরিবর্তন আসে। এ সময়ে মানুষ উৎসবের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অনেক সামগ্রীও কিনে থাকে। জানা গেছে, গত বছর দেশে পশু কোরবানি হয়েছে প্রায় এক কোটি ৫ লাখ। চলতি বছর দেশের বাজারে সরবরাহের জন্য প্রস্তুত রয়েছে এক কোটি ১৫ লাখ ৫৭ হাজার পশু। এর সঙ্গে যদি চাহিদা ১০ শতাংশ বৃদ্ধি পায় তাতেও সংকট হবে না। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে থেকে গরু আমদানি হচ্ছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সূত্র মতে, দেশে গবাদিপশুর পালন বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি বছর কোরবানিযোগ্য গরু-মহিষ রয়েছে ৪৪ লাখ ৫৭ হাজার, ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা ৭১ লাখ।

গত বছর দেশে পশু কোরবানি হয়েছে প্রায় এক কোটি ৫ লাখ। এ হিসাবে এ বছর গরু, ছাগল, ভেড়া, মহিষ মিলিয়ে কোরবানি পশুর সংখ্যা বাড়বে প্রায় ১০ শতাংশ। এ হিসাবে এবার এক কোটি ২০ লাখ লাখ পশু কোরবানি হবে।

দেখা গেছে, কোরবানির পশুর হাটগুলোতে গরুর দাম সর্বনিম্ন ৪০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত উঠেছে। প্রায় ১৫ লাখ গরু আসতে পরে ভারত, মিয়ানমার, ভূটান থেকে। গত বছর কারবানির পশুর হাটগুলোতে গরুর দাম সর্বনিম্ন ৩০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২২ লাখ টাকা পর্যন্ত উঠেছিল। যদিও গরুর দাম বেড়েছে। দেশে কোরবানি যোগ্য ছাগল-ভেড়া রয়েছে ৭১ লাখ। বর্তমানে ছাগলের বাজারদর সর্বনিম্ন ১৫ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। গড়ে প্রতিটি ছাগল ২০ হাজার টাকা ধরা হলে এ বাবদ প্রায় সাড়ে ১৪ হাজার কোটি টাকা লেনদেন হবে। এ হিসাবে কোরবানির পশু বেচাকেনা বাবদ লেনদেন হবে ৫০ হাজার কোটি টাকা।

দেড় লাখ কোটি টাকার চামড়া বাণিজ্য

যে পরিমাণ পশু কোরবানি হবে, তা থেকে কিছু চামড়া নষ্ট হবে। এ হিসাবে এক কোটি ১৫ লাখ পশুর চামড়া আসার কথা (বেশিও হতে পারে)। প্রতি পিস চামড়ার দাম গড়ে এক হাজার টাকা ধরা হলে চামড়া ক্রয়-বিক্রয় বাবদ লেনদেন হবে এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা। তবে বড় একটা অংশ পাচার হয়ে যায়, আবার সংরক্ষণও করা যায় না। সংরক্ষণ ও পাচার রোধ কমাতে পারলে চামড়ার বাজার মূল্য আরও বাড়বে।

৯০০ কোটি টাকার ব্যাংক ঋণ

কোরবানি উপলক্ষে ব্যাংকিং লেনদেনও বেড়ে যায়। এবার কোরবানি উপলক্ষে চামড়া কেনার জন্য ব্যাংকগুলো কমপক্ষে ৯০০ কোটি টাকার ঋণ দিচ্ছে। রফতানির অর্থও দেশে আসছে। এ ছাড়া ঈদে গ্রাহকদের নগদ টাকার চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ঈদ অর্থনীতিতে বড় অংকের অতিরিক্ত ছেড়েছে।

পশুর হাটে হাসিল

হাটে পশু কেনাবেচায় ৫ শতাংশ হারে হাসিল দিতে হয়। সেই হিসাবে হাসিলের পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ৬ লাখ কোটি টাকা। এ ছাড়া হাটের অবকাঠামো তৈরি, পরিবহন খরচ, বেপারীদের থাকা-খাওয়ার খরচ বাবদও প্রচুর অর্থ ব্যয় হবে। চাঙ্গা হয়ে উঠবে স্থানীয় ব্যবসা-বাণিজ্য।

কোরবানীর উপকরণ

কোরবানির পশু সাজাতে বিভিন্ন উপকরণ ব্যবহার হয়। এর মধ্যে কাগজ ও জরির মালা, ঘণ্টি মালা, নানা ধরনের কাপড়ের মালা এবং রংবেরঙের দড়িসহ নানা উপকরণ রয়েছে। কোরবানির ঈদের প্রাক্কালে তাই চাঙ্গা হয়ে ওঠে এসব তৈরির ক্ষুদ্র শিল্পগুলো। জানা গেছে, রাজধানীর শুধু গাবতলি হাটেই এসব উপকরণ প্রতিদিন বিক্রি হয় ১২ থেকে ১৬ লাখ টাকার। এ হিসাবে ঈদের আগের ১০ দিনে এক কোটি ২০ লাখ থেকে এক কোটি ৬০ লাখ টাকার উপকরণ বিক্রি হচ্ছে।

 

প্রবাসী অর্থ

ঈদ সামনে রেখে প্রবাসীরা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে টাকা পাঠানোর হার বাড়িয়ে দেয়। চলতি অর্থবছরের (২০১৭-১৮) প্রথম মাস জুলাইতে দেশে ১১১ কোটি ৫৫ লাখ মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা মুদ্রায় দাঁড়ায় প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা। জুনে এর পরিমাণ ছিল ১২১ কোটি ৪৬ লাখ ডলার। এছাড়া হুন্ডি ও নগদ আকারে এসেছে ৬০ শতাংশ। যার বেশিরভাগই ঈদ অর্থনীতিতে খরচ হবে।

গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা

এফবিবিসিসিআইয়ের হিসাব অনুসারে, ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা, পণ্য পরিবহন মিলে এ খাতে বাড়তি লেনদেন হবে আরও ৬০০ কোটি টাকার। এর বাইরে ভ্রমণ ও বিনোদন খাতে আরও বাড়তি ব্যয় হবে চার হাজার কোটি টাকা। এ ছাড়া সাড়ে ২০ লাখ সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীর ঈদ-বোনাস বাবদ প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা, দেশব্যাপী ৬০ লাখ দোকান কর্মচারীর বোনাস চার হাজার ৮০০ কোটি টাকা, পোশাক ও বস্ত্র খাতের ৭০ লাখ শ্রমিকের সম্ভাব্য বোনাস দুই হাজার ৫০০ কোটি টাকা যোগ হবে চলমান অর্থপ্রবাহে। এর বাইরে, ব্যাংক কর্মকর্তারা চার থেকে ছয়টি করে বোনাস পেয়েছেন। ঈদে পাদুকা, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প, বৃহৎশিল্প, গৃহসামগ্রী, কৃষিপণ্যের চাহিদা বাড়ে। ফলে এসব খাতও চাঙ্গা হয়ে উঠবে।

মসলাসহ নিত্যপণ্যের বাজারে কোরবানির প্রভাব

কোরবানির আসলেই হুড়মুড়িয়ে বাড়ে বিভিন্ন ধরনের মসলারদাম। এর মূল কারণ চাহিদা বৃদ্ধি। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুসারে, প্রতি বছর কোরবানি উললক্ষে দেশে হাজার হাজার টন গরম মসলার আমদানি হয় থাকে। এছাড়া কোরবানির পশু জবাই ও মাংস তৈরিতে অবশ্য-প্রয়োজন উপকরণ হলো ছুরি, বঁটি, দা, চাপাতি, রামদা ইত্যাদি।

এ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ মামুন রসিদ বলেন, আগে শুধু কোরবানি দেয়াটাই ছিল মুখ্য। এখন এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে পর্যটন। যুক্ত হয়েছে ঈদ বোনাস। সব মিলিয়ে একটি ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি হচ্ছে অর্থনীতিতে। ধীরে ধীরে আনুষ্ঠানিক পেশার বিস্তার ঘটছে। সেটাকে কেন্দ্র করে কোরবানির অর্থনীতিও বড় হচ্ছে।

তিনি বলেন, ফ্রিজ, টিভি প্রভৃতি পণ্যের বিক্রি বাড়ছে। অনেক সেলফোন কোম্পানি ঈদ ধামাকার ব্যবস্থা করছে। ঈদকে কেন্দ্র করে টাকার লেনদেন বাড়ছে। নতুন নোটের সার্কুলেশন বাড়ছে। গ্রামীণ অর্থনীতিতেও আধুনিকায়নের ছোঁয়া লাগছে। ফলে ঈদের অর্থনীনিতিটা ফি-বছর বড় হচ্ছে।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কাজে যোগ দিচ্ছে সেনাবাহিনী: ওবায়দুল কাদের

রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কাজে যোগ দিচ্ছে সেনাবাহিনী: ওবায়দুল কাদের

 মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কাজে সেনাবাহিনী যোগ দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের

রোহিঙ্গা ইস্যুত বিএনপি-জামায়াতের বক্তব্যে যুদ্ধের উস্কানি: ইনু

রোহিঙ্গা ইস্যুত বিএনপি-জামায়াতের বক্তব্যে যুদ্ধের উস্কানি: ইনু

মায়ানমারে নির্যাতিত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের নিয়ে বিএনপি-জামায়াতের বক্তব্যে যুদ্ধের উস্কানি পাওয়া যাচ্ছে বলে

দেশ পরিচালনার যোগ্যতা নেই বর্তমান সরকারের : দুদু

দেশ পরিচালনার যোগ্যতা নেই বর্তমান সরকারের : দুদু

এই সরকারের দেশ পরিচালনার কোনো রকম যোগ্যতা নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়াম্যান শামসুজ্জামান


পালিয়ে না থেকে খালেদা জিয়াকে মোকাবেলার আহ্বান শেখ হাসিনার

পালিয়ে না থেকে খালেদা জিয়াকে মোকাবেলার আহ্বান শেখ হাসিনার

 বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘১৪০ বার কোর্টের কাছ থেকে সময়

সুচির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ১৪ দল

সুচির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ১৪ দল

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির দেয়া বক্তব্য কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে মন্তব্য করেছে

প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি: ইমরানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি: ইমরানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কূটক্তিমূলক বক্তব্য দেয়ার মামলায় গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ, সরকারসহ ২ জনের


পাঠ্যবই মুদ্রণ : সমিতির ধর্মঘট অব্যাহত

পাঠ্যবই মুদ্রণ : সমিতির ধর্মঘট অব্যাহত

মুদ্রণশিল্প সমিতির ধর্মঘটের কারণে আজও বন্ধ আছে সব ধরনের পাঠ্যবই ছাপানো ও সরবরাহের কাজ। তবে

ডিসেম্বরের মধ্যে ফোর জি: তারানা

ডিসেম্বরের মধ্যে ফোর জি: তারানা

স্টাফ রিপোর্টার : আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দেশে চতুর্থ প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবা ফোর জি চালু করা

ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হলো ৫ শতাধিক রোহিঙ্গাকে

ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হলো ৫ শতাধিক রোহিঙ্গাকে

 আশ্রিত রোহিঙ্গাদের একটি নির্ধারিত স্থানে রাখতে সরকারের উদ্যোগ কঠোরভাবে বাস্তবায়নে কাজ শুরু করেছে প্রশাসন। এ



আরো সংবাদ






কমছে না ক্রেডিট কার্ডের সুদহার

কমছে না ক্রেডিট কার্ডের সুদহার

০৪ অগাস্ট, ২০১৭ ১৫:১২








ব্রেকিং নিউজ










সুচির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ১৪ দল

সুচির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ১৪ দল

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৫:১৮


পাঠ্যবই মুদ্রণ : সমিতির ধর্মঘট অব্যাহত

পাঠ্যবই মুদ্রণ : সমিতির ধর্মঘট অব্যাহত

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৫:১০